সন্ধান

এমন কপ্টার ভেঙে গেল কী করে, অবাক সেনারা

আবহাওয়া পরিস্থিতি আগাম বোঝার জন্য রেডার ছিল উত্তরাখণ্ডে ভেঙে পড়া হেলিকপ্টারটিতে। দৃশ্যমান্যতা কমে গেলে তার জন্য ছিল বিশেষ আলোর ব্যবস্থাও। এবং ওই হেলিকপ্টারটি নিয়ে যে বায়ুসেনার ৫ জন কর্মী-অফিসার উত্তরাখণ্ডে গিয়েছিলেন, তাঁরাও অত্যন্ত দক্ষ ও প্রশিক্ষিত বলে জানিয়েছেন বায়ুসেনার ইস্টার্ন কম্যান্ডের প্রধান এয়ার

কিন্তু তা সত্ত্বেও কপ্টারটি ভেঙে পড়ল কেন? এ প্রশ্নের জবাবে শর্মার বক্তব্য, “রিপোর্ট পেলে বোঝা যাবে। তবে প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে, যান্ত্রিক ত্রুটিতেই এই ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। সেটাই তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।” বায়ুসেনা সূত্রের খবর, ওই এমআই-১৭ ভি-৫ হেলিকপ্টারটি রাশিয়ায় তৈরি। মোট ৮০টি এমন কপ্টার কেনার কথা ভারতের। আপাতত ৩০টি এসেছে। তারই একটি ভেঙে পড়ল। বায়ুসেনা সূত্রে জানা গিয়েছে, আধুনিক সমস্ত ব্যবস্থা মজুত থাকায় ওই হেলিকপ্টারগুলির দাম অনেক বেশি। ওই কপ্টারগুলির মধ্যে কয়েকটি রাশিয়া আগে ব্যবহারও করেছে বলে বায়ুসেনা অফিসারেরা জানিয়েছেন।ওই দুর্ঘটনার পরে বুধবার ব্যারাকপুরে এসেছিলেন এয়ার মার্শাল আর কে শর্মা। পরে তিনি বলেন, “ওই কপ্টারের পাইলট ও কো-পাইলট অত্যন্ত দক্ষ। তাই তাঁদের ভুলে দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে মনে হয় না।” ব্যারাকপুরে আপাতত এই ধরনের ১০টি কপ্টার রয়েছে। এই কপ্টারগুলি ১৯ হাজার ৬৯০ ফুট উচ্চতায় টানা ৪৬৫ কিলোমিটার উড়তে পারে। বায়ুসেনা কর্তাদের বক্তব্য, এত উচ্চতায় উড়তে পারে বলেই পাহাড়ি অঞ্চলে বিশেষ কাজে ব্যবহার করার জন্য এই কপ্টারগুলির জুড়ি নেই।

বায়ুসেনা সূত্রের খবর, দুর্ঘটনায় তাঁদের যে ৫ জন কর্মী-অফিসারের মৃত্যু হয়েছে তাঁরা হলেন কে প্রবীণ (পাইলট), তপনকুমার কপুর (পাইলট), এ কে সিংহ (কর্মী), এস যাদব (কর্মী) এবং ড্যানিয়েল (কর্মী)। আজ বৃহস্পতিবার, ব্যারাকপুর সেনা ছাউনিতে ওই পাঁচ জনকে শ্রদ্ধা জানানো হবে।

আনন্দবাজার পত্রিকা