সন্ধান

জলে টইটম্বুর ঘরের মেঝে

খাট থেকে নামার জো নেই৷ ঘরের মেঝে জলে টইটম্বুর৷ রবিবার থেকে শুরু হওয়া অবিরাম বৃষ্টিতে এ ভাবেই দিন কাটছে বড়িশার শীলপাড়ার প্রতিহার পরিবারের৷ ঘরে রোগী থাকলেও তাঁর জন্য কোনও খাবার তৈরি করা সম্ভব হচ্ছে না৷ কারণ, জলে ভেসে গিয়েছে রান্নাঘর৷ তীব্র হয়েছে পানীয় জলের সঙ্কট৷ এই পরিস্থিতিতে কী ভাবে দিন কাটবে বুঝে উঠতে পারছেন না পরিবারের সদস্যরা৷

ঘরের আলমারি ও ফ্রিজের প্রায় অর্ধেকটা জলের তলায়৷ শৌচাগার জলে ভর্তি৷ দুর্গতরা জানাচ্ছেন, টানা দু’দিন ভারী বৃষ্টি হলে নাকি এই পরিস্থিতি অবধারিত৷ ১২৫ নম্বর ওয়ার্ডের নিকাশী নিয়ে পুরসভার ভূমিকায় ক্ষুব্ধ স্থানীয় বাসিন্দারা৷ তাঁদের অভিযোগ, এ ভাবে দিন কাটলেও দেখা মেলেনি পুর প্রতিনিধিদের৷পাশের ওয়ার্ড ১২৬-এরও একই অবস্থা৷ চারদিকে জমা জল৷ দফায় দফায় বৃষ্টিতে বাড়ছে কালিকিঙ্কর রোড, সাবর্ণপাড়ার জলস্তর৷ একই অবস্থা লাগোয়া ডায়মন্ডবারবার রোডেরও৷