সন্ধান

তবু খন্দে ভরা

নগর জুড়ে চলছে সৌন্দর্যায়ন। অথচ তার যাত্রাপথ জুড়ে ফাটল। কিন্তু অভিযোগ, সে দিকে নজর নেই বিধাননগর পুরসভার।

বিধাননগরের একাধিক রাস্তা নিয়েই বাসিন্দা ও নিত্যযাত্রীদের অভিযোগ রয়েছে। তাঁদের অভিযোগ, বার বার জানানো হলেও কিছুই হয়নি। যদিও বিধাননগর পুরকর্তৃপক্ষ জানান, অর্থাভাবে সংস্কার সম্ভব হয়নি। তবে প্রক্রিয়া চালু হয়েছে। দ্রুত মেরামতি হবে।

বিধাননগরে এখন উৎসবের মরসুম। কিছু দিন বাদেই বিধাননগর মেলা শুরু হবে। জোরকদমে নগর জুড়ে সৌন্দর্যায়নের কাজ চলছে। কিন্তু রাস্তার দিকে নজর দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ। দমদমের বাসিন্দা সৌগত মজুমদারের কথায়: ‘‘বাইপাস থেকে শর্টকাটে ইস্টার্ন ড্রেনেজ চ্যানেলের পাশের রাস্তা ধরেছিলাম। কংক্রিটের এই রাস্তা প্রথম দিকে ভাল। কিন্তু কেবি-কেসি আবাসনের পরে পুরো রাস্তা ভাঙা। মেরামতি দূর অস্ত্, এই অংশে যান চলাচল বন্ধ রাখাও হয়নি। একটুর জন্য বড় দুর্ঘটনা ঘটেনি।’’ সল্টলেকবাসীর অভিজ্ঞতা, এই উপনগরীর বেশ কিছু জায়গায় রাস্তার এই অবস্থা।

স্থানীয় বাসিন্দা সুদীপ রায় বলেন, ‘‘করুণাময়ী থেকে সিটি সেন্টার, আবার করুণাময়ী থেকে জেকে সাহা সেতুমুখী রাস্তারও বিপজ্জনক অবস্থা। অসাবধান হলেই বিপদ ঘটতে পারে।’’ আর এক বাসিন্দা শুভাশিস বসুর কথায়: ‘‘একাধিক আইল্যান্ডের কাছে গর্ত হয়ে রয়েছে। পথচারী ও চালকদের সাবধান করার মতো কোনও ব্যবস্থা করেনি প্রশাসন।” বাসিন্দাদের অভিযোগ, বর্ষায় প্যাচওয়ার্ক হয়েছে। কিন্তু আবার রাস্তা খারাপ হয়ে যাচ্ছে। তাঁদের দাবি, পুরসভা এই সমস্যার স্থায়ী সমাধান করুক।

বাসিন্দাদের সংগঠন, বিধাননগর (সল্টলেক) ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক কুমারশঙ্কর সাধু বলেন, ‘‘বেশ কিছু রাস্তা বার বার খারাপ হচ্ছে। এই সমস্যার স্থায়ী সমাধান করুক প্রশাসন। একটা নির্দিষ্ট সময় ঘোষণা করা হোক যার মধ্যে রাস্তাগুলি মেরামত করা হবে। তা না হলে কাজ শুরু হয়েও বারবার বন্ধ পড়ে থাকছে।’’ পুরসভার বিরোধী দল সিপিএমের অভিযোগ, উন্নয়ন নিয়ে পুর-কর্তৃপক্ষের কোনও দিশা নেই। রাস্তা মেরামতি, জল সরবরাহের মতো জরুরি পরিষেবার দিকে নজর দেওয়া দরকার।

বিধাননগরের বেশ কয়েকটি রাস্তা নগরোন্নয়ন দফতরের অধীন। বাসিন্দাদের একাংশের দাবি, বিধাননগরের সব রাস্তার দেখভালের দায়িত্ব যেন পুরসভাকে দেওয়া হয়। নগরোন্নয়ন দফতর মেরামত না করলে পুরসভার কিছু করার থাকে না। যদিও পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম আগেই জানিয়েছিলেন, পুর এলাকার রাস্তার দেখভালের দায়িত্ব পুরসভারই। অর্থের সমস্যা থাকলে রাজ্যে সহযোগিতা করবে। পুরসভার চেয়ারম্যান পারিষদ (পূর্ত) অনুপম দত্ত বলেন, ‘‘সল্টলেকের একটি অংশে মেট্রোর কাজের জন্য রাস্তা খারাপ হয়েছিল। এর পরে মেরামতও হয়েছে। একটি রাস্তা নগরোন্নয়ন দফতর দ্রুত মেরামত করবে বলে জানিয়েছে। অন্যান্য রাস্তার ক্ষেত্রে তালিকা তৈরি করে মেরামতের প্রস্তুতি চলছে।’’

 

আনন্দবাজার পত্রিকা