সন্ধান

প্রতিবাদের তীব্র আঁচ শহরের রাজপথে

পশ্চিমবঙ্গ নারী নিগ্রহে প্রথম। এই পরিস্থিতিকে ধিক্কার জানাতে আজ, শুক্রবার কলেজ স্কোয়ার থেকে মহামিছিলে পা মেলালেন রাজ্যের বিশিষ্ট জন ও বিদ্বজ্জনরা। কামদুনিতে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ করে খুন, কৃষ্ণগঞ্জ ও গেদে তে ছাত্রীকে ধর্ষণ করে খুনের মতো ঘটনার প্রতিবাদের আঁচ এবার শহরের রাজপথে। আজ কলেজ স্কোয়ার থেকে নাগরিক সমাজের মিছিলে পা মিলিয়েছে কামদুনিও। দোষীদের ফাঁসির দাবিতে মিছিলে হাঁটবেন গ্রামবাসীরা। থাকবেন নির্যাতিতার নিকট আত্মীয়রাও। ক্ষোভ আর আতঙ্কের মাঝেই সকাল থেকে মিছিলে যোগ দেওয়ার প্রস্তুতি শুরু হয় কামদুনিতেও। কামদুনি, কৃষ্ণগঞ্জ থেকে গ্রামবাসীরাও এসে যোগ দেন মহা মিছিলে।

গ্রামবাসীরা জানিয়েছেন, এদিন দুপুরে নির্যাতিতার বাড়ি থেকে কামদুনি মোড় পর্যন্ত একটি মিছিল করা হয়। তারপর দু'টি ম্যাটাডোরে করে কলেজ স্কোয়ারের উদ্দেশে রওনা দেন তাঁরা। অন্যদিকে, ঘটনার পর প্রায় দু’সপ্তাহ কেটে গেলেও থমথমে কামদুনি। পুলিশি টহলদারিও অনিয়মিত। গ্রামের ভেতরে পুলিশ ক্যাম্প থাকলেও, কামদুনি মোড়ের পুলিশ ক্যাম্পটি তুলে দেওয়া হয়েছে। এলাকায় এখনও আতঙ্কের পরিবেশ।

দেখুন ভিডিও

আজ শুক্রবার সিঙ্গুর-নন্দীগ্রামকাণ্ডের পর আজ ফের পথে নাগরিক সমাজ৷ রাজ্যে একের পর এক নারী নিগ্রহের প্রতিবাদে আজ কলেজ স্কোয়ার থেকে মেট্রো চ্যানেল পর্যন্ত মিছিলে সামিল কবি শঙ্খ ঘোষ, অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, প্রখ্যাত অর্থনীতিবিদ অশোক মিত্র, অধ্যাপক তরুণ সান্যাল, নাট্য ব্যক্তিত্ব রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত, অভিনেতা সব্যসাচী চক্রবর্তী-সহ অন্যান্যরা৷ এই মিছিলের অন্যতম আহ্বায়ক চলচ্চিত্র পরিচালক মৃণাল সেন মিছিলে উপস্থিত না থাকলেও কবি শঙ্খ ঘোষকে তিনি একটি লিখিত বার্তা পাঠিয়েছেন৷ মিছিলের শুরুতে সেই বার্তা পাঠ করেন কবি শঙ্খ ঘোষ৷

সিঙ্গুর-নন্দীগ্রামকাণ্ডের পর ফের পথে নামলেন কবি শঙ্খ ঘোষ৷ রাজ্যে একের পর এক নারী নিগ্রহের প্রতিবাদে আজ নাগরিক মিছিলে সামিল হলেন তিনি৷ কবি জানিয়েছেন, মিছিলের জন্যই রাজ্যের বাইরে যাওয়া একদিন পিছিয়ে দিয়েছেন তিনি৷ মিছিলে সামিল হয়েছে কামদুনিও। বেশ কয়েকজন গ্রামবাসী হিন্দ সিনেমার কাছে মিছিলে যোগ দিয়েছেন। আজ দুপুর তিনটেয় কলেজ স্কোয়ার থেকে শুরু হয় নাগরিক মিছিল৷ ধর্মতলায় মেট্রো চ্যানেলে গিয়ে মিছিল শেষ হয়৷

শাসকের চোখ রাঙানি আর প্রশাসনিক অপদার্থতার মধ্যে দাঁড়িয়ে রাজ্যবাসী আজ অসীম শক্তি নিয়ে মিছিল করে এগিয়ে যান৷ ধর্ষকদের ফাঁসির দাবিতে বার বার স্লোগান ওঠে। ফাঁসির দাবিতে গর্জে ওঠে জনতা। কলেজ স্কোয়ার থেকে বিদ্বজ্জনদের মিছিল প্রসঙ্গে বার্তা দেন মৃণাল সেনের৷ শারীরিক অসুস্থতার জন্য এদিন তিনি মিছিলে পা মেলাতে পারেননি৷ চিঠি পাঠিয়ে তিনি বলেছেন, ‘সকলে একসঙ্গে মিছিলে হাঁটছেন জেনে ভাল লাগছে৷ হাজার ইচ্ছে থাকলেও একানব্বই বছরের অশক্ত শরীরের দরুণ যেতে পারছি না, ভাবতে ভাল লাগছে না৷ তবু বলব, এ দিনটা আমাদের এক বিশিষ্ট দিন৷ নারী নির্যাতন তো বটেই, কিন্তু সমাজের নানা স্তরে যত ক্লেদ ঢুকে পড়েছে, আর তারই সঙ্গে বর্তমান শাসকের চোখ রাঙানি আর অপকর্ম, এসবের মধ্যে দাঁড়িয়ে মানুষ আজ অসীম শক্তি নিয়ে এগিয়ে চলেছে৷ আমি তাঁদের প্রণাম জানাই৷’ শান্তিপূর্ণ অ্হিংস মিছিলে সরকারের মুণ্ডপাত করে গলা মেলান কামদুনি, গাইঘাটার মানুষও।

 

ক্লিক করুন ও পড়ুন: বদমেজাজে মিলায় তত্ত্ব, সন্দেহে বহুদূর