সন্ধান

পাহাড়ের গ্রেফতার ২৬ মোর্চা নেতা-কর্মী-সমর্থক

একদিকে কলকাতা হাইকোর্টের হুঁশিয়ারি৷ অন্যদিকে, রাজ্য সরকারের কঠোর মনোভাব৷ এই সাঁড়াশি চাপে এখন অনেকটাই ব্যাকফুটে গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা৷ শুধু তাই নয়, বিমল গুরুং-রোশন গিরিদের উপর চাপ আরও বাড়িয়েছে গোর্খাল্যান্ড জয়েন্ট অ্যাকশন কমিটিতে ফাটল৷ এই পরিস্থিতিতে পাহাড়ে ফের নতুন করে অচলাবস্থার সৃষ্টি করতে চাইছে মোর্চা৷ পাঁচ দিনের ঘুরিয়ে ডাকা বনধ একদিনে নামিয়ে সোমবার পালিত হল ‘ঘরের ভিতর জনতা’ কর্মসূচি৷ যদিও, মোর্চার এই কর্মসূচি তেমন একটা সাড়া ফেলতে পারেনি পাহাড়ে৷ অচলাবস্থায় যে তাঁদের সায় নেই, তা বোঝাতে ঘর থেকে বেরিয়েছেন বহু মানুষই৷

পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পাহাড়ের বিভিন্ন জায়গায় চলছে কেন্দ্রীয় বাহিনীর টহল৷ মোতায়েন প্রচুর পুলিশ৷ খুব দ্রুতই পাহাড় সমস্যার সমাধান হবে বলে এদিন আশা প্রকাশ করেন রাজ্যপাল এম কে নারায়ণন৷

অন্যদিকে মোর্চার উপর চাপ বাড়াতে পাহাড়ে গ্রেফতার অব্যাহত৷ রবিবার রাতভর দার্জিলিং, কার্শিয়ং, কালিম্পং সহ পাহাড়ের বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চালিয়ে ২৬ জন মোর্চা নেতা-কর্মী-সমর্থককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ৷ পুলিশ সূত্রে খবর, পুরনো মামলায় তাঁদের গ্রেফতার করা হয়েছে৷

অন্যদিকে, ‘ঘরের ভিতর জনতা’ কর্মসূচির পর মঙ্গলবার থেকে পাহাড় অবরুদ্ধ করতে ‘রাস্তার ওপর জনতা’ কর্মসূচি নিয়েছে মোর্চা৷ ইতিমধ্যেই মোর্চার আন্দোলনের জেরে পর্যটকশূন্য পাহাড়৷ এই পরিস্থিতিতে ফের নতুন করে অচলাবস্থা তৈরির আশঙ্কায় আতঙ্কে পাহাড়বাসী৷