সন্ধান

ফের খুন-ধর্ষণের অভিযোগ রাজ্যে

ধর্ষণের অভিযোগের তালিকায় জুড়ল আরও একটি নাম। ফের এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করে খুনের অভিযোগ পাওয়া গেল নদিয়ার মায়াপুরে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, স্কুলে যাওয়ার জন্য বৃহস্পতিবার সকালে বাড়ি থেকে বেরোয় বর্ধমানের কালনার ওই স্কুলছাত্রী। অভিযোগ, অভিজিত্‍ প্রামাণিক নামে এক বন্ধু তাঁকে নিয়ে মায়াপুরের একটি হোটেলে ওঠেন। তাঁদের সঙ্গে তরুণীর এক বান্ধবী ও আর এক বন্ধুও ওই হোটেলে ওঠেন। পুলিশ জানতে পেরেছে, সন্ধেয় ওই তরুণী অচৈতন্য হয়ে পড়েন। তাঁকে কৃষ্ণনগর সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিত্সকরা মৃত বলে জানান। এরপর কৃষ্ণনগর কোতয়ালি থানার পুলিশ ওই মৃত তরুণীর তিন বন্ধুকেই আটক করে। শুক্রবার সকালে তাঁদের মধ্যে এক যুবকের বিরুদ্ধে নবদ্বীপ থানায় মৃতার পরিবারের তরফে ধর্ষণ করে খুনের অভিযোগ দায়ের করা হয়। এরপরই অভিজিতকে গ্রেফতার করে পুলিশ। অভিজিত ওই তরুণীকে নিয়ে যে হোটেলে উঠেছিলেন, তার মালিক রাধামাধব সিকদার এবং হোটেলের ম্যানেজারকেও গ্রেফতার করেছে নবদ্বীপ থানার পুলিশ। তাঁদের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে হোটেল ভাড়া দেওয়া ও প্রমাণ লোপাটের চেষ্টার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এদিনই ধৃতদের নবদ্বীপ আদালতে তোলা হয়। দোষীদের কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়েছে মেয়েটির পরিবার।

ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরোর সাম্প্রতিকতম রিপোর্ট অনুযায়ী, নারী নিগ্রহে দেশের মধ্যে শীর্ষস্থানে পশ্চিমবঙ্গ। কামদুনিকাণ্ডের প্রতিবাদে সোচ্চার গোটা রাজ্য। কিন্তু তারপরও ফের এ ধরনের ঘটনা রাজ্যে মহিলাদের নিরাপত্তাকে প্রশ্নের মুখে ঠেলে দিল।