সন্ধান

সাবমেরিন বিস্ফোরণে মৃত বাঙালি জওয়ান মলয় হালদার

আরব সাগরে তলিয়ে যাওয়া নৌসেনার ডুবোজাহাজ সিন্ধুরক্ষকে ছিলেন দুই বাঙালি৷ তাঁর মধ্যে একজন দুর্গাপুরের বাসিন্দা মলয় হালদার৷ মঙ্গলবার রাতে মুম্বই ডকে ডুবোজাহাজ আইএনএস সিন্ধুরক্ষকে পরপর বিস্ফোরণ ঘটে৷ বিস্ফোরণের জেরে আগুন লেগে যায়৷ তলিয়ে যায় ডুবো জাহাজটি৷ নিখোঁজ হয়ে যান ১৮ জন নৌসেনার জওয়ান৷ তাঁর মধ্যে ২ জন বাঙালি৷ একজন মলয় হালদার৷ দুর্গাপুরের ডিপিএল টাউনশিপে বাড়ি৷ বছর ২১ বয়স৷ বাড়িতে মা-বাবা ও ছোট ভাই৷ ২০১১ সালে নৌ বাহিনীতে যোগ দেন৷ সিন্ধুরক্ষকের তলিয়ে যাওয়ার খবর পেয়েই পরিজনেরা ছুটেছেন মুম্বই৷ দুর্গাপুরের বাড়িতে তালা৷ সিন্ধুরক্ষকের তলিয়ে যাওয়ার খবর পাওয়ার পর থেকেই মলয়ের জন্য চিন্তায় দিন কাটাচ্ছেন তাঁর প্রতিবেশীরাও৷ পাড়ার ছেলে মলয়ের খবর পেতে এখন অধীর অপেক্ষায় দিন কাটাচ্ছে দুর্গাপুরের ডিপিএল টাউনশিপ এলাকা৷ আশঙ্কা করা হচ্ছে, মলয় সহ বাকি জওয়ানরা মারা গিয়েছেন।

এদিকে, দুর্ঘটনার প্রায় ৫৬ ঘন্টা পরে আরসব সাগরে তলিয়ে যাওয়া আইএনএস সিন্ধুরক্ষক থেকে মৃত চার সেনার দেহ উদ্ধার করল উদ্ধারকারীরা। বাকি ১৪ জন সেনার খোঁজে এখনও তল্লাশি চলছে। নৌবাহিনীর পক্ষে ১৮ জন সেনার নামের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। তাদের বাড়িতেও খবর দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে আবহাওয়া খারাপ থাকার জন্য উদ্ধার কাজে দেরি হচ্ছে জানিয়ে দুঃখ প্রকাশ করা হয়েছে সরকারের পক্ষে। সূত্রের খবর, মৃত ১৮ জনের মধ্যে দু'জন বাঙালি নৌসেনাও রয়েছেন।

ক্লিক করুন ও দেখুন ভিডিও

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার মাঝরাতে পরপর তিন বিস্ফোরণ ও তার জেরে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে মুম্বইয়ে বন্দরের অদূরেই তলিয়ে গেল ভারতীয় নৌবাহিনীর ডুবোজাহাজ আইএনএস সিন্ধুরক্ষক। দুর্ঘটনার সময়ে ওই সাবমেরিনের কেবিনের বাইরে থাকা তিন জন কোনও মতে জলে ঝাঁপিয়ে বাঁচেন। কিন্তু ভিতরে যে ১৮ জন নাবিক ছিলেন, তাঁদের বেঁচে থাকার সম্ভাবনা নেই বলেই নৌবাহিনী জানিয়েছে।

প্রাথমিক রিপোর্টে অবশ্য বলা হয়েছে, ডুবোজাহাজটির সামনের দিকে একটি কেবিনে টর্পেডো মজুত ছিল। ব্যাটারির চেম্বারে শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লাগে এবং তা ছড়িয়ে পড়ে টর্পেডো চেম্বারে। বিস্ফোরণ ঘটেছিল সেখানেই। কয়েকটি সূত্রের দাবি, প্রথমে একটি ছোট বিস্ফোরণ ঘটে। তার পরেই আরও দু’টি বড়সড় বিস্ফোরণ। এই সময়ে ডুবোজাহাজে মজুত টর্পেডো ও অন্যান্য আগ্নেয়াস্ত্রে আগুন লেগে সেগুলিও ফাটতে শুরু করে বলে মনে করা হচ্ছে। বিস্ফোরণের পর দুমড়ে-মুচড়ে যায় ডুবোজাহাজের সামনের অংশটা। হুড়মুড়িয়ে জল ঢুকতে থাকে। ক্রমে তলিয়ে যায় সিন্ধুরক্ষক। কালো ধোঁয়া ও লাল আগুনের শিখায় ঢেকে যায় কোলাবা এলাকার আকাশ। স্বাধীনতা দিবসের দিন অমর জওয়ান জ্যোতিতে শ্রদ্ধা অর্পণ করে সিন্ধুরক্ষকের মৃত ও নিখোঁজ সেনাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান প্রধানমন্ত্রী, প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও তিন বাহিনীর প্রধান। আজ শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত চারটি দেহ উদ্ধার করা গিয়েছে। বাকি দেহগুলির হদিশ পেতে সমুদ্রের তলায় তল্লাশি চলছে।